শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭ 
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / খেলা / এক ম্যাচে ১২ হলুদ ও ৫ লাল কার্ড

এক ম্যাচে ১২ হলুদ ও ৫ লাল কার্ড

ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের রোববারের (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতটি নেতিবাচক কারণে স্মরণীয় হয়ে থাকবে দীর্ঘদিন। যেখানে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন প্যারিস সেইন্ট জার্মেই মুখোমুখি হয়েছিল মার্শেইর। ম্যাচে মাঠের খেলায় ফুটবলের চেয়ে যেন বেশি ছিল মারামারি আর ফাউলের ছড়াছড়ি।

যার ফলে ব্যতিব্যস্ত থাকতে হয়েছে রেফারিকে, একের পর এক বাজিয়েছেন ফাউলের বাঁশি, পকেট থেকে বের করেছেন হলুদ ও লাল কার্ড। আর এতে করেই হয়ে গেছে নেতিবাচক এক রেকর্ড। যা না হলেই হয়তো খুশি হতেন পিএসজি ও মার্শেইর খেলোয়াড়রা।

পুরো ম্যাচে ১২ হলুদ কার্ড ৫ লাল কার্ড দেখিয়েছেন রেফারি। যা কি না চলতি শতকে লিগ ওয়ানের কোনো ম্যাচে সর্বোচ্চ কার্ডের রেকর্ড। এর বাইরে ম্যাচের পুরো সময়ে দুই দল মিলে মোট ফাউলই করেছে ৩৬ বার। অর্থাৎ ৯০ মিনিটের মধ্যে অন্তত ৩৬ বার খেলা থামাতে হয়েছে রেফারিকে।

ফাউল ও কার্ডের জমজমাট খেলার শুরুটা ম্যাচের সপ্তম মিনিটে। পিএসজি তারকা নেইমারকে ডি বক্সের বাইরে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন মার্শেই ডিফেন্ডার হিরোকি সাকাই। এর মিনিট চারেক পর কার্ডের খড়গ আসে নেইমারের ওপরেই। এবার তিনি তর্কে জড়ান মার্শেইর স্ট্রাইকার দিমিত্রি পায়েটের সঙ্গে। দুজনকেই হলুদ কার্ড দেখান রেফারি।

ফের কার্ডের দেখা মেলে দুই মিনিট পরই। এবার মার্শেইর অ্যামাভিকে ট্যাকল করায় হলুদ কার্ড দেখেন পিএসজি ডিফেন্ডার আলেজান্দ্রো ফ্লোরেনজি। বেশ কিছুক্ষণ বন্ধ থাকার পর ৩৮ মিনিটে আবারও নেইমারের ওপর কড়া ট্যাকল, এবার হলুদ কার্ড দেখেন মার্শেই মিডফিল্ডার পেপ গাই।

প্রথমার্ধে দুই দল মিলে ছিল এই পাঁচ হলুদ কার্ডের ঘটনা। দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে পঞ্চম ও সপ্তম মিনিটের মধ্যে হলুদ কার্ড দেখেন মার্শেই ডিফেন্ডার আলভারো গঞ্জালেজ এবং পিএসজি ডিফেন্ডার হুয়ান বার্নাট ভেলাসকো। নয় মিনিট পর মাঝ মাঠে প্রতিপক্ষে জার্সি টেনে ধরে হলুদ কার্ড দেখেন মার্শেই স্ট্রাইকার ম্যাক্সিম লোপেজ।

ম্যাচের ৭১ মিনিটের সময় অফসাইডের বাঁশি বাজানোর পর রাগ দেখিয়ে লাথি মেরে বল বাইরে পাঠানোর কারণে হলুদ কার্ড দেখানো হয় মার্শেই স্ট্রাইকার দারিও বেনদেত্তোকে। এক মিনিট পর পায়েটকে পেছন থেকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন পিএসজি মিডফিল্ডার লেওনার্দো পারেদেস।

এর দুই মিনিট পর ফের পায়েটের ওপর কড়া ট্যাকল। এবার ফাউলকারী পিএসজির আরেক ফরোয়ার্ড অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। তাকেও হলুদ কার্ড দেখাতে কার্পণ্য করেননি রেফারি। এখানেই হলুদ কার্ডের খেলার সমাপ্তি নয়, পাঁচ লাল কার্ডের ঝড়ের আগে অতিরিক্ত যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে মার্শেই মিডফিল্ডার কেভিন স্ট্রুটম্যান দেখেন ম্যাচের শেষ হলুদ কার্ড।

এরপরই সেই মারামারির ঘটনা। দুই দলের দুই আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় লেওনার্দো পারেদেস ও দারিও বেনদেত্তোর ফাউলের ঘটনাকে বড় করেন জর্ডান অ্যামেভি-ল্যাভিন কুরযায়ারা। ফলে চারজনকেই দেখানো হয় লাল কার্ড। আর সবশেষ ভিডিও এসিস্ট্যান্ট রেফারির সহায়তা নিয়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য করা হয় নেইমারকে। যদিও তার অভিযোগ আলভার গঞ্জালেজ তাকে বর্ণবাদী গালি দিয়েছেন।

error: Content is protected !!