শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ 
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / জাতীয় / খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধিদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা দিয়েছিল শেখ হাসিনা তা নামিয়ে ফাঁসির মঞ্চ তৈরি করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছে-আব্দুর রহমান

খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধিদের গাড়িতে জাতীয় পতাকা দিয়েছিল শেখ হাসিনা তা নামিয়ে ফাঁসির মঞ্চ তৈরি করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করেছে-আব্দুর রহমান

নিজস্ব প্রতিনিধি ॥ বিএনপি-জামায়াতের কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আবদুর রহমান বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকতে জামায়াত ও যুদ্ধাপরাধিদের মন্ত্রীত্ব দিয়ে গাড়ীতে জাতীয় পতাকা উপহার দিয়েছিল। আর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সেই যুদ্ধাপারাধীদের বিচারের মধ্যদিয়ে সেই পতাকা নামিয়ে ফাঁসির মঞ্চে নিয়েগেছে।

তিনি আরও বলেন খালেদা জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাত করে কারাগারে গেছেন। মামলার রায় দিয়েছে আদালত। জামিনদেবে আদালত। এতে আওয়ামী লীগ সরকারের কিছুই করার নেই। কিন্তু তার মুক্তিরনামে কেউ নৈরাজ্য করলে,রাজপথ উত্তপ্ত করলে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেবে সাতক্ষীরার নেতা-কর্মীরা তার জবাব দেবে। তিনি আরও বলেন শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়, সাতক্ষীরার উন্নয়ন হয়। তিনি জেগে থাকলে দেশ নিরাপদ থাকে, বাংলার জনগন নিরাপদ থাকে। তাই সড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা চুত্য করা যাবেনা। বিএনপির দোশর জামায়াত ঘূর্ণিঝড় বুল বুলের মত ভেসেগেছে। তারা আর কোন দিন ক্ষমতায় আসতে পারবে না।

আবদুর রহমান ১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপরোক্ত কথা বলেন। এর আগে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষনা করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য।
আওয়ামী লীগে কোনো সন্ত্রাসী চাঁদাবাজের স্থান হবে না জানিয়ে আবদুর রহমান বলেন যে কোনো অনুপ্রবেশকারীকে প্রতিহত করতে নেতা কর্মীদের সতর্ক পাহারায় থাকতে হবে। খালেদা জিয়ার মুক্তির ব্যাপারে যে যতো হুংকার দিক তা রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে। তারা কোনো ধরনের বিশৃংখলা সৃষ্টি করলে তার দাঁতভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আফম রুহুল হক বলেন দেশকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে একযোগে কাজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্র হিসাবে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন । আমরা তার কর্মী হিসাবে থাকতে চাই।

সম্মেলনের বিশেষ অতিথি জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি বলেন দেশে শেখ হাসিনার কারণে ভোট ও জনসমর্থন দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে আমাদের কর্মকান্ডের জন্য ভোট কমছে। এজন্য নেতাকর্মীদের সংশোধিত হতে হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মুনসুর আহমেদের সভাপতিত্বে শহরের শহীদ আবদুর রাজ্জাক পার্কে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন, আমিরুল আলম মিলন, মারুফা আক্তার পপি, সাতক্ষীরা সদর আসনের এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, সাতক্ষীরা-৪ আসনের এমপি এস এম জগলুল হায়দার, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমপি ইঞ্জিনিয়ার শেখ মুজিবর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বিকাল ৪ টায় অধিবেশনের দ্বিতীয় অধ্যায়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে কাউন্সিল অধিবেশনের কাজ শরু হয়।

সভাপতি পদে প্রার্থী হিসাবে মুক্তিযোদ্ধা মুনসুর আহমেদ, সাতক্ষীরা-৩ আসন এমপি ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হক, সাতক্ষীরা সদর-২ আসনের এমপি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রকৌশলী শেখ মুজিবুর রহমান ও জেলা কৃষক লীগের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধুর নাম লিখিত ভাবে প্রস্তাব কারি ও সমার্থন কারি উল্লেখ পূর্বক প্রতেকে একটি করে আবেদন পত্র সাংগঠনিক সম্পাদক জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপির নিকট জমা দেন।

এসময় সাধারন সম্পাদক পদে আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম, সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্র, শেখ সাহিদ উদ্দীন, মো: আসাদুজ্জামান বাবু, আ.ন.ম তারেক উদ্দিন, অধ্যাপক আবু আহমেদ সহ ৬ জন আবেদন পত্র জমাদেন।

পরবর্তিতে সমঝোতামূলক আলোচনা শেষে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনার অনুমতিক্রমে মুনসুর আহমেদকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক পদে পুননির্বাচিত করে সম্মেলনের প্রধান অতিথি আব্দুর রহমান সকলের উপস্থিতে নাম ঘোষনা করেন।

error: Content is protected !!