মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ 
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / All News / আশাশুনির মোনায়েম হত্যা মমলায় সঠিক নাম ঠিকানা না থাকায় মামলা থেকে বাদ পড়েছে অনেকই

আশাশুনির মোনায়েম হত্যা মমলায় সঠিক নাম ঠিকানা না থাকায় মামলা থেকে বাদ পড়েছে অনেকই

স্টাফ রিপোর্টার: আশাশুনিতে মৎস ঘের দখলকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় মোনায়েম হোসেন গাইন (৪৫) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দূর্বত্তরা। নিহত মোনায়েম হোসেন গাইন কালিগঞ্জ উপজেলার চম্পাফুল ইউনিয়নের মৃত শাহাজুদ্দীন গাইনের ছেলে। বুধবার সকালে আশাশুনি উপজেলার শোভনালী ইউনিয়নের বালিয়াপুর বিলে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহতের চাচা রুহুল আমিন গাইন বাদি হয়ে শোভনালী ইউপি চেয়ারম্যান ম, মোনায়েম হোসেনকে প্রধান করে মোট ১৯ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ১৮/২০ জনকে অঙ্গাত করে আশাশুনি থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলা নাম্বার ২/৮৪ তারিখ ০১/০৫/২০১৯ খ্রিঃ। মামলার ইজাহার থেকে জানাগেছে, বাদি রুহুল আমিন গাইন ও তার ভাইপো এ ঘটনায় নিহত মোনায়েম হোসেন গাইন ঘটনার দিন বালিয়াপুর বিলে তাদের মৎস্য ঘেরে অবস্থান করা কালিন সময়ে সকাল ৯ টার দিকে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ১নং আসামির নেতৃত্বে প্রায় ৪০ জনের একটি সন্ত্রাসি বাহিনী দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ঘেরটি দখল নিতে গেলে তারা বাধা দেয়। এসময় ১নং আসামি মোনায়েম সানার নির্দেশে ২ নং আসামি নাজমুল সাকিব লিটন আমার ভাইপোর মাথায় ধানালো দা দিয়ে কোপ দিলে সে মারাত্বক ভাবে জখম হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। এসময় অন্য আসামিরা আমাকে এলোপাতাড়ি ভাবে আঘাত করতে থাকে। চিতকার চিচামেচিতে আশপাশের লোকজন আসতে থাকলে সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থান ত্যাগ করে পালিয়ে যায়। এই ঘটণায় আশাশুনি থানা পুলিশ আসামি শোভনালী ইউপি চেয়ারম্যান ম মোনায়েম হোসেন সানা (৫০),তার ভাই আরশাদ হোসেন সানা (৬৩) ও বাটরা গ্রামের আশু সরদারের ছেলে লিটন সরদার ওরফে বাবু (৪০)কে আটক করেছে। নিহতের ভাই ইউপি সদস্য গোলাম কাইয়ুম গাইন জানান, আশাশুনি উপজেলার শোভনালী ইউনিয়নের বালিয়াপুর বিলে প্রায় ১৬ বিঘা জমির একটি মাছের ঘের নিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ম. মোনায়েম হোসেন সানা ও ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম গাইনের মধ্যে দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে বুধবার সকালে ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম গাইনের দখলে থাকা মাছের ঘেরটি চেয়ারম্যান মোনায়েম হোসেন সানার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী জবর দখল নিতে গেলে এঘটনা ঘটে। মামলার বাদি রুহুল আমিন গাইন জানান, যাদের নাম ঠিকানা পাওয়া গেছে তাদের উল্লেখ করে দেয়া হয়েছে। অঙ্গাতনামাদের টিনতে পারলেও তাদের সঠিক নাম ঠিকানা না জানার কারনে উল্লেখ করা সম্ভব হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রতক্ষদর্শী জানান, আশাশুনির বসুখালী গ্রামের ছামছুর গাজীর ছেলে নুরুজ্জামান ও ডাক্তার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে মোনায়েমের ভাড়াটিয়া ডুন্ডা কালিগঞ্জের ইন্দ্রনগর গ্রামের মৃত মানিক আলী পাড়ের ছেলে আব্দুর রউফ পাড়, কুরমান পাড়ের ছেলে আব্দুল গফুর পাড়, আব্দুর ছাত্তার পাড়ের ছেলে নূর ইসলাম, জহর আলী পাড়ের পুত্র শাহিনুর পাড় তার ভাই চান্নু পাড়, মৃত নছের আলী গাজীর ছেলে ছবুর গাজী, রহিম বস্কের ছেলে রহমান পাড়, রহমাতুল্লাহ পাড়ের ছেলে রেজাইল পাড়, সূবর্ণলতা গ্রামের রহমত গাজীর ছেলে ফজর আলী গাজী, তাদর্তোর ছেলে শান্ত, কাজলা গ্রামের এবাদুল গাজীর ছেলে ইসরাইল গাজী, ভাংঙ্গালমারী গ্রামের আনসার আলীর পুত্র মুর্শিদ, কাশিবাটি গ্রামের আরশাফ আলী মীরের ছেলে হাবিব মীরকে বসুখালী সহ বিভিন্ন এলাকায় একসাথে দল বেধে ঘুরা ঘুরি করতে দেখা গেছে। এমনকি ঘটনার সময়ও তাদেরকে ঘটনা স্থানের আশেপাশে ঘুরাঘুরি করতে দেখা গেছে।

error: Content is protected !!