মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ 
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / আন্তর্জাতিক / শ্রীলঙ্কায় নতুন করে কারফিউ জারি

শ্রীলঙ্কায় নতুন করে কারফিউ জারি

সাতক্ষীরা ২৪ নিউজ ইন্টান্যাশনাল ডেস্ক :

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার পর নতুন করে কারফিউ ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। নতুন ঘোষণা অনুযায়ী স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যা আটটা থেকে মঙ্গলবার ভোর চারটা পর্যন্ত কারফিউ বহাল থাকবে। এর আগে শ্রীলঙ্কা সরকার সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কারফিউ জারির ঘোষণা দিয়েছিল।

ওই হামলার ঘটনায় ইতিমধ্যে ২৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে দেশটির পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

শ্রীলঙ্কান পুলিশের এক মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকারা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ভয়াবহ এ হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এছাড়া এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গুজব বা ভুয়া খবর ঠেকাতে দেশটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় রোববার সকাল পৌনে ৯টার দিকে তিনটি গির্জা এবং হোটেলে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পরই দেশটির সব গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় নিরাপত্তা জোরদার করার পর বিমানবন্দর থেকে ওই পাইপ বোমা উদ্ধার করা হয়। বিমানবন্দরটিতে চিরুনি অভিযান ও তল্লাশির পর চার ঘণ্টা দেরিতে বিমান চলাচল পুনরায় শুরু হয়।

শ্রীলঙ্কায় একদিনের জাতীয় শোক

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ হামলার পর মঙ্গলবার সারা দেশে একদিনের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। সোমবার এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে প্রেসিডেন্টের মিডিয়া ডিভিশন।

বিবিৃতিতে আরো বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার অধীনে থাকা জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার একদিনের জাতীয় শোক দিবস পালন করা হবে।

৭ জন আত্মঘাতী বোমারু জড়িত

শ্রীলংকায় ইস্টার সানডের দিন গির্জা ও হোটেলে সাত আত্মঘাতী বোমারু সিরিজ হামলা চালিয়েছে বলে দেশটির ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। হামলাকারীদের দেহের বিভিন্ন অংশ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তারা এমন তথ্য দিয়েছেন।

শ্রীলংকার অপরাধ অনুসন্ধানকারী ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ আরিয়ানন্দ ওয়েলিয়াঙ্গ বলেছেন, হামলাকারীদের দেহের বিভিন্ন অংশ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মনে হয়েছে, তারা সবাই আত্মঘাতী বোমারু ছিলেন। তবে বেশিরভাগ হামলা একজন বোমারু করলেও কলম্বোর শাংরি-লা হোটেলে দুজন হামলা করেছিল বলে জানান তিনি।

এপির তথ্যকে উদ্ধৃত করে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ছয়টি গির্জা ও হোটেলে বোমা হামলা চালিয়েছে সাতজন আত্মঘাতী বোমারু।’

যদিও এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ হামলার দায় স্বীকার করেননি।

আরো হামলার আশঙ্কা করছে যুক্তরাষ্ট্র

শ্রীলঙ্কায় আরো সন্ত্রাসী হামলার বিষয়ে সতর্ক করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। আজ সোমবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

রোববার শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ হামলার পর মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর ভ্রমণবিষয়ক সতর্কতা সংশোধন করে। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় রোববার এই সংশোধিত সতর্কতা জারি হয়।

সতর্কতায় মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বলেছ, রোববারের হামলার পর শ্রীলঙ্কায় আরও হামলার ষড়যন্ত্র করছে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো। তারা সামান্য সতর্কতা বা কোনো ধরনের সতর্কতা ছাড়াই হামলা চালাতে পারে।

সতর্কতায় বলা হয়, হামলার সম্ভাব্য লক্ষ্যবস্তু হতে পারে পর্যটন স্থান, পরিবহনের কেন্দ্রস্থল, বিপণিবিতান, হোটেল, উপাসনালয়, বিমানবন্দর ও অন্যান্য জনবহুল স্থান।

শ্রীলঙ্কায় মসজিদে হামলা

গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলার পর এবার শ্রীলংকায় মসজিদে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। আগুন দেয়া হয়েছে মুসলিম মালিকানাধীন কয়েকটি দোকানে। নিরাপত্তাকর্মীদের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম এজেন্সিয়া ইএফই ও বিদেশি সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু বিজনেস লাইন। রোববার রাতে দেশটির পুত্তালুম জেলায় একটি মসজিদে পেট্রলবোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এছাড়া বান্দারাগামা এলাকায় মুসলিম মালিকানাধীন অন্তত দুটি দোকান ভাঙচুরের পর আগুন দেয়া হয়েছে।

হোটেলের কিউতে দাঁড়িয়েছিলো হামলাকারী

ইস্টার সানডের দিন সকালে কলম্বোর সিনামন গ্রান্ড হোটেলের ট্যাপ্রোবেন রেস্টুরেন্টে নাস্তার জন্য দীর্ঘ লাইনে ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করেছিল আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী। আস্তে আস্তে লাইনের সামনে পৌঁছায় সে। রেস্টুরেন্টের কর্মী তার প্লেটে যখন খাবার তুলে দিতে যাবেন, ঠিক সেই মুহূর্তে নিজের পিঠে থাকা বিস্ফোরক বোঝাই ব্যাগে বিস্ফোরণ ঘটায় সে। তার নাম মহম্মদ আজম মহম্মদ বলে জানা গেছে। সে শ্রীলঙ্কার নাগরিক। তবে এটি তার ছদ্মনাম কি না, জানা যায়নি।

হোটেলের রেকর্ড বলছে, হামলার আগের দিন রাতে ওই পাঁচতারা হোটেলে চেক-ইন করেছিল মহম্মদ আজম মহম্মদ। সে ব্যবসার কাজে এসেছে বলে জানিয়েছিল। যে ঠিকানা দিয়েছিল, সেটি ভুয়া বলে জানতে পেরেছেন হোটেল কর্তৃপক্ষ।

নাম গোপন রাখার শর্তে সংবাদ সংস্থা এএফপি-র কাছে সিনামন গ্র্যান্ডের ‘ট্যাপ্রোবেন রেস্টুরেন্টের অন্যতম ম্যানেজার দাবি করেছেন, আজমই ওই আত্মঘাতী জঙ্গি।

২৪ জন আটক

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ হামলার ঘটনায় এ পর্যন্ত ২৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে তাদের নাম পরিচয় এখনো প্রকাশ করা হয়নি।

শ্রীলংকার পুলিশ বলছে তাদের বিশ্বাস সানডেতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে যারা তাদের বড় অংশই একটি উগ্র ইসলামপন্থী গোষ্ঠীর সাথে জড়িত। এই গোষ্ঠীটি স্থানীয়ভাবেই তাদের তৎপরতা চালায় বলে বলা হচ্ছে।

কলম্বোর বিমানবন্দর থেকে পাইপ বোমা উদ্ধার

শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার পর রোববার কলম্বোর বন্দরনায়েক বিমানবন্দর থেকে একটি পাইপ বোমা উদ্ধার করেছে স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন।

বিমানবন্দরটির প্রধান টার্মিনালের রাস্তায় পেতে রাখা পাইপ বোমাটি পরে বিমানবাহিনীর বিশেষজ্ঞরা নিষ্ক্রিয় করেছে।

বিমানবাহিনীর মুখপাত্র গ্রুপ ক্যাপ্টেন জিহান সেনেভিরত্নে জানান, উদ্ধার করা বোমাটি হাতে তৈরি করা। ৬ ফুট লম্বা একটি পাইপের মধ্যে বিস্ফোরক বোঝাই করা ছিল।

প্রসঙ্গত, রোববার শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর তিনটি গির্জা এবং হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৯০তে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো ৫ শতাধিক মানুষ। হতাহতদের মধ্যে ছয় ভারতীয়সহ অর্ধ শতাধিক বিদেশি রয়েছে বলেও জানা গেছে।

শ্রীলঙ্কায় দীর্ঘ এক দশক ধরে চলা ভয়াবহ গৃহযুদ্ধের পর এটাই সবচেয়ে বড় হামলার ঘটনা। ওই গৃহযুদ্ধে দেশটিতে এক লাখের বেশি মানুষ মারা গিয়েছিলো।একই সঙ্গে শ্রীলঙ্কার খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের বিরুদ্ধেও এটিই সবচেয়ে বড় হামলা। দেশটির খ্রিস্টান সম্প্রদায় এর আগেও বেশ কিছু হামলার শিকার হয়েছে তবে সেসব হামলায় এত বেশি হতাহতের ঘটন ঘটেনি।

খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডের দিনে স্থানীয় সময় সকাল পৌনে ৯টা নাগাদ বিস্ফোরণ শুরু হয়। প্রায় দু ঘণ্টা ধরে একে এক আটটি বোমা বিস্ফোরিত হয়। এদের মধ্যে কমপক্ষে দুটি ছিলো আত্মঘাতী বোমা হামলা।

রাজধানীর কলম্বোর তিনটি জনপ্রিয় হোটেলে হামলা হয়। এছাড়া রাজধানীর বাইরে তিনটি শহরের তিনটি প্রধান গির্জায় বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। যে তিনটি গির্জায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে সেগুলো কোচকিকাদে, কাতুয়াপিটিয়া ও বাট্টিকালোয়া নামক স্থানে অবস্থিত। এসব গির্জায় ইস্টার সানডে উপলক্ষে অনুষ্ঠান চলছিল।

তাছাড়া রাজধানীর সাংগ্রি লা, দ্য কিন্নামোন এবং কিংসবারি নামক আরও তিনটি হোটেলে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। হোটেল তিনটি রাজধানী কলম্বোর কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। এরপর আরো দুটি স্থানে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাগুলোর অধিকাংশই ছিল আত্মঘাতী।

error: Content is protected !!