শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ 
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / জেলার-খবর / বহিস্কারের ১৬ দিনের মাথায় নেতৃত্বে বহাল সাতক্ষীরার নুরহাজান ঝর্ণা ॥ বিএনপি’র মধ্যে সমালোচনার ঝড়

বহিস্কারের ১৬ দিনের মাথায় নেতৃত্বে বহাল সাতক্ষীরার নুরহাজান ঝর্ণা ॥ বিএনপি’র মধ্যে সমালোচনার ঝড়

শাকিলা ইসলাম জুঁই ॥

দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে বহিস্কারের ১৬ দিনের মধ্যে আবারও নুরহাজান ইলাহী ঝর্ণা নেতৃত্বে বহাল ও দলে অন্তরভূক্ত হওয়ায় তোলপাড় শুরু হয়েছে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপি ও মহিলা দলের মধ্যে। দলীয় হাই কমান্ডের নির্দেশের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শনকারীদের দলের সকল পর্যায় থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কারের পরও তারা আবার স্বপদে ফিরতে শুরু করায় দলের এমন দেউলিয়াপনা সিদ্ধান্তে ক্ষোভে ফেঁটে পড়েছে স্থানীয় বিএনপির নেতৃবৃন্দ। গোটা শ্যামনগর জুড়ে সাধারন মানুষ ও সুশিল সমাজ এবং রাজনৈতিক মহলের মধ্যে সমালোচনা দেখা দিয়েছে।

জানাগেছে সম্প্রতি ৫ম ধাপে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি অংশ গ্রহন না করে দলীয় চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নির্দেশে নির্বাচন থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু কিছু সুযোগ সন্ধানী নেতা-নেত্রী দলীয় সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তারা নির্বাচনে অংশ নিয়ে চরম ভরাডুবির শিকার হন।

অভিযোগ রয়েছে, সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলা থেকে উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক আশেক-ই এলাহী মুন্নার স্ত্রী উপজেলা মহিলা দলের সভানেত্রী নুরহাজান ইলাহী ঝর্ণা দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে গত ২৪ মার্চ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইচ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন। ভোটে চরম ভরাডুবি হয় তার। আড়াইল লাখ ভোটের মধ্যে মাত্র হাজার পাঁচেক ভোট পেয়ে পরাজিত হন। এতে বিএনপিসহ নিজ সংগ্রঠন শ্যামনগর উপজেলা মহিলা দলের ভামুর্তি দারুনভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে মনে করেন দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা।

নুরহাজান ঝর্ণা এর আগেও দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে গত সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছিলেন। তবে এবার উপজেলা নির্বাচনে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গ করে নুরজাহান এলাহাী ঝর্ণা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বচনে অংশ নেওয়ায় গত ১৮ মার্চ তারিখে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-দপ্তর সম্পাদক মোহাম্ম মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তাকে দলের সকল পর্যায় থেকে বহিস্কার করা হয়। অথচ একই নেতা স্বাক্ষরিত গত ৪ এপ্রিলের একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দেখা গেছে নুরজাহান এলাহী ঝরনাকে বাংলাদেশ মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নিযুক্ত করা হয়েছে। যার ক্রমিক নং ১৬২। দল থেকে বহিস্কারের মাত্র ১৬ দিনের মাথায় তাকে আবারও কেন্দ্রীয় মহিলা দলের সদস্য নির্বাচিত করায় স্থানীয় শ্যামনগর উপজেলা বিএনপি ও মহিলা দলের মধ্যে ব্যাপক সমালোচনা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

শ্যামনগর উপজেলা বিএনপির নেতা আবব্দুস সবুর, মোশারফ হোসেন, ও মহিলা দলের নেত্রী রেহেনা বিলকিস, জাহেদা বেগম ক্ষোভের সাথে বলেন, দলীয় নির্দেশ ও শৃংখলা লংঘনের অভিযোগে যাকে বহিস্কার করা হলো, তাকে কেন আবার কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মনোনীত করে পুরস্কৃত করার হলো তার প্রকৃত রহস্য কি সেটা আমাদের জানা নেই। তবে এমন বিশ^াসঘাতক ক্ষমতালোভীদের যদি দলে জায়গা দেয়া হয় তাহলে অচিরেই শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া দলটির অস্থিত্ত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে না। অতি দ্রুত তারা নুরজাহান এলাহী ঝর্ণার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমান ও মির্জা ফখরুল ইসলামসহ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা কর্মীদের হস্তক্ষেপ কামনা কেরেছেন তারা।

এবিষয়ে জেলা মহিলা দলেল সভানেত্রী বিউটি বেগম বলেন কেন্দ্রীয় মহিলা দলের সভানেত্রী সুলতানা পারভীন এর মুটোফোন বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে এ ধরনের বিষয়গুলোর সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া উচিত। #

 

 

error: Content is protected !!